এবার ভেজাল গুড়ের সিন্ডিকেটকেই রুখে দিলো রাজশাহী জেলা এসপি 

উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

বাঘা- চারঘাট ঘুরে রমজান  ও আশুতোষ ::  রাজশাহী অঞ্চলে গুড়ের ভেজাল অভিযান চললেও কিন্তু থেমে থাকেনি ভেজাল গুড়ের দৌড়াত্ম। ভেজাল গুড়ের বিরুদ্ধে কয়েক দফা  ব্যার্থ অভিযানের পর  নড়েচড়ে বসেছেন রাজশাহীর পুলিশ সুপার খোদ এবিএম মাসুদ হোসেন, বিপিএম (বার)। অবশ্য রাজশাহী জেলায় যোগদানের পর পরই এসপি মাসুদ রাজশাহী জেলা পুলিশকে ঢেলে সাজিয়েছেন নতুন করে। আর তাই তো বারংবার সফলতা হাতছানী দিয়েছে এই মানবিক এসপিকে।

 

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, শুধু রাজশাহী জেলাতেই রয়েছে ৮ লাখের বেশি খেজুর গাছ। এই গাছ থেকে মৌসুমে প্রায় ৫০ থেকে ৬০ কোটি টাকার গুড় উৎপাদন হয়ে থাকে। রাজশাহী জেলায় সবচেয়ে বেশি খেজুর গাছ রয়েছে চারঘাট উপজেলায়। এখানে খেজুর গাছের সংখ্যা প্রায় ৭ লাখ। কিন্তু ভেজাল গুড়ের সিন্ডিকেট বছরের পর বছর ধরে প্রায় ২০-২৫ কোটি টাকার বানিজ্য করে আসছে। যার ফলে প্রকৃত গুড় ব্যবসায়ীরা নায্য মূল্য থেকে  বঞ্চিত হয়ে আসছিল। 

 

হঠাৎ দেখলে গুড়ের মতো মনে হলেও এটা আদো গুড় নয়। রাজশাহী জেলার বাঘায় দীর্ঘদিন চলে আসছে এমন গুড় তৈরি ও বিক্রি কর্যক্রম। রাতের আধারে ক্ষতিকারক পদার্থ দিয়ে তৈরি হয়। এসব গুড় সকাল হলেই ট্রাক বা অন্য যানবাহনে চলে যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। যার ফলে রাজশাহীসহ আশেপাশের জেলার জনসাধারণের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে ক্যান্সারের মত মরন ব্যাধী।

 

ভেজাল গুড়ের সিন্ডিকেট নিয়ে শ্বাসরুদ্ধকর সফল অভিযান শেষ করল রাজশাহী জেলা পুলিশ
ভেজাল গুড়ের সিন্ডিকেট নিয়ে শ্বাসরুদ্ধকর সফল অভিযান শেষ করল রাজশাহী জেলা পুলিশ ।। Uttorbongo Protidin 

 

 


 

এরই ধারাবাহিকতায় এমন একটি চক্রের ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে রাজশাহী জেলা পুলিশ । এই ৭ জনই ভেজালগুড় তৈরিতে এক্সেপার্ট (খুব পারদর্শী)। এসময় তাদের থেকে ৫০ মণ ভেজাল খেজুরের গুড় উদ্ধার করে রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। এসময় গ্রেফতারকৃতদের থেকে ভেজাল গুড় তৈরির উপকরণ উদ্ধার করা হয়। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, এই ৭ জন ব্যাক্তি বৃহত্তর রাজশাহী তথা উত্তরবঙ্গের ভেজাল গুড়ের উৎপাদন ও নিয়ন্ত্রন কর্তা।

 

উক্ত চাঞ্চল্যকর ঘটনায় আজ সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা পৌনে ১২টার দিকে রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, বিপিএম (বার) এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, এই গুড় মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর।আবার কখনো কখনো মরনব্যাধী ক্যান্সারের কারন।

 

গ্রেফতাররের পরে পুলিশ সদস্যরা গ্রেফতারকৃতদের বলে; তোমরা এই গুড় তৈরি করেছ। এই গুড় তোমরা খেয়ে দেখাও। কিন্তু গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে কেউ এই গুড় খেয়ে দেখায় নি। এমন প্রশ্নের উত্ততে পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান- বাজারে ভেজাল গুড় থাকতে পারে। এগুলো বিএসটিআই, ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তরসহ সরকারের অন্য সংস্থাগুলো ভেজাল বিরোধী অভিযান চালাবে। তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে। আমাদের জানালে আমরা তাদের সহযোগিতা করবো।

 

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাঘার আড়ানী চকরপাড়া গ্রামে ভেজাল খেজুরের গুড় তৈরির কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে ৫০ মণ ভেজাল খেজুরের গুড়সহ কারখানার মালিক ওই এলাকার মৃত আবুল হোসেন ছেলে রকিব আলী (৪২), তার সহযোগী সুমন আলী (৪২), অনিক আলী পাইলট (৩০), মাসুদ রানা (৩০), বিপ্লব হোসেন সাজু (২৫), মামুন আলী (২৭), বাবুকে (২৫) গ্রেফতার করা হয়। তাদের সবার বাড়ি আড়ানী চকরপাড়ায়।এসময় তাদের থেকে গুড় ভর্তি ৫৮টি ক্যারেট। 

https:\/\/preview-xupnewsc.uttorbongoprotidin.com//preview-xupnewsc.uttorbongoprotidin.com//m.youtube.com/watch?v=wxv6dVdqcRA

প্রতিটি ক্যারেটের গুড়সহ ওজন ৩৫ কেজি করে সর্বমোট ২ হাজার ৩০ কেজি। মূল্য অনুমান ২ লাখ ৪৩ হাজার ৬০০ টাকা।, ১০ বস্তা চিনি। ১৮ কেজি ফিটকিরি, ২৫ কেজি চুন, ৬০০ গ্রাম ডালডা, ১ কেজি হাইড্রোজ, দুইটা তাওয়া। এছাড়া উদ্ধারকৃত মালামালের মূল্য ৩ লাখ ৫ হাজার ৬৬৫ টাকা।

 

পুলিশ আরো জানায় – জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা জানান ৩ মাস যাবৎ ওই কারখানায় চিনি, চুন, হাইড্রোজ, ফিটকারি, ডালডা ও বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান মিশিয়ে ভেজাল খেজুরের গুড় তৈরি করে আসছে। 

 

পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে রাজশাহীর পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, বিপিএম (বার), রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) আবু সালেহ মো. আশরাফুল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জেলা বিশেষ শাখা) সনাতন চক্রবর্তী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ইফতে খায়ের আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) অলক বিশ্বাস, সহকারী পুলিশ সুপার (জেলা বিশেষ শাখা) রুবেল আহমেদ ও সহকারী পুলিশ সুপার (এসএএফ) নিয়াজ মেহেদী উপস্থিত ছিলেন ।

 

অবশ্য  রাজশাহী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে গুড় বিরোধী এই ধরনের সফল অভিযানকে ইতিবাচক দিক হিসেবে দেখছেন  রাজশাহী জেলার আপামর জনগন। সর্বশেষ খবর পাওয়া মতে বাঘা, চারঘাট অঞ্চলের প্রকৃত গুড় ব্যবসায়ীরা আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরন করেছেন। আর এই জনবান্ধব ও মানবিক এসপি মাসুদের জনকল্যানমূখী কর্মকান্ডের জন্য দলমত নির্বিশেষে সকলেই তার মঙ্গল কামনা করেছেন।যা রাজশাহী জেলা পুলিশের ইতিহাসে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে আজীবন।


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

Discover more from UttorbongoProtidin.Com 24/7 Bengali and English National Newsportal from Bangladesh.

Subscribe to get the latest posts to your email.

5 thoughts on “এবার ভেজাল গুড়ের সিন্ডিকেটকেই রুখে দিলো রাজশাহী জেলা এসপি 

  1. brillx официальный сайт вход
    https://brillx-kazino.com
    Но если вы ищете большее, чем просто весело провести время, Brillx Казино дает вам возможность играть на деньги. Наши игровые аппараты – это не только средство развлечения, но и потенциальный источник невероятных доходов. Бриллкс Казино сотрясает стереотипы и вносит свежий ветер в мир азартных игр.Так что не упустите свой шанс вступить в мир Brillx Казино! Играйте онлайн бесплатно и на деньги в 2023 году, окунувшись в море невероятных эмоций и неожиданных поворотов. Brillx – это не просто игровые аппараты, это источник вдохновения и увлечения. Поднимите ставки и дайте себе шанс на большую победу вместе с нами!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *