সানি হত্যা মামলায় রাজশাহীতে ২ জনের যাবজ্জীবন

উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন :: কিশোর গ্যাংয়ের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বে রাজশাহীতে সানি হত্যা মামলায় ২ আসামির যাবজ্জীবন এবং দুজনকে খালাস দিয়েছেন রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল।

 

 

 

সোমবার (১১ মার্চ) দুপুরে রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক মহিদুজ্জামান এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন মো. মঈন আন্নাফ মাহবুব আলম (১৯) ও হাবিবা কুমকুম ঔষি (২৮)। খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন মো. নাজরিন আক্তার বিথি বেগম (৪২) ও মো. সালাউদ্দিন বিপ্লব (৩৫)।

 

 

 

রাজশাহী দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর পিপি অ্যাডভোকেট এনতাজুল হক বাবু বলেন, ২০২২ সালের ৩ জুলাই সন্ধ্যায় নগরীর দড়ি খরবোনার রফিকুল ইসলাম পাখির ছেলে সানি (১৭) তার বন্ধুকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। বাড়ি ফেরার পথে রাত পৌনে ৯টায় ৪ জন আসামি সানিকে কৌশলে হেতেমখাঁ সাহাজী পাড়া কফিল উদ্দিন জামে মসজিদের পাশে নিয়ে যায়। সেখানে পূর্ব থেকেই আরও ১৪-১৫ জন আসামি উপস্থিত ছিলেন। সনি সেখানে পৌঁছানো মাত্রই আসামিরা অতর্কিতভাবে তাকে চাকু, লোহার হাতুড়ি, চাইনিজ কুড়াল ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে গুরুতর জখম করেন। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন সনিকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সনির বাবা রফিকুল ইসলাম পাখির এমন অভিযোগে রাজশাহী বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা রুজু হয়।

 

 

অ্যাডভোকেট এনতাজুল হক আরও বলেন, সনি হত্যা মামলায় মোট আসামি ছিল ৯ জন। এদের মধ্যে ৫ জন শিশু। তাদের বিচার শিশু আদালতে হচ্ছে। ৪ জন আসামির রায় আজ ঘোষণা করা হলো। এদের মধ্যে মো. মঈন আন্নাফ মাহবুব আলম (১৯) ও হাবিবা কুমকুম ঔষিকে (২৮) ৩০২ ধারায় যাবজ্জীবন ও ৩৬৪ ধারয় ১০ বছর কারদণ্ড প্রদান করেন আদালত। অপর আসামিদের খালাস দেওয়া হয়েছে। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

Discover more from UttorbongoProtidin.Com 24/7 Bengali and English National Newsportal from Bangladesh.

Subscribe to get the latest posts to your email.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *