rcc-election-counsilor-candidate-ali-reza-razib.jpg
আমি কারো সমালোচনা করতে চাই না। জনগণ ওয়ার্ড উন্নয়নে যাকে যোগ্য মনে করবেন, তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন - আলী রেজা রাজিব

রাসিকের ২ নং ওয়ার্ডে হেভিওয়েট কাউন্সিলর প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আলী রেজা রাজিব

Rajshahi_Pet_Care
উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

রমজান আলী,উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন ::  আগামী ২১ জুন রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন  নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জনে উঠেছে ভোটের রাজনীতি । এরই মধ্যে প্রার্থীরা ব্যাপকভাবে প্রচার প্রচারণা করছেন কাউন্সিলর প্রার্থীরা। তারই ধারাবাহিক প্রচার প্রচারণায় নেমেছেন রাসিকের ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। তবে বর্তমান রাসিকের ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুলের প্রতি ক্ষুন ওয়ার্ডবাসী। তাই নতুন নেতৃত্ব চাইছেন এলাকাবাসী।

 

 

তবে ক্ষমতা স্থায়ী নয়। তাই আসন্ন রাসিক নির্বাচনে তরুণ প্রজন্মের স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি নিয়ে তরুন প্রজন্মের উদীয়মান নেতৃত্ব প্রদানকারী, সমাজসেবক, ক্রীড়াপ্রেমী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আলী রেজা (রাজিব) রাসিকের ২নং ওয়ার্ডে লাটিম মার্কা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বর্তমান কাউন্সিলর নজরুলের বিপক্ষে। 

 

 

তবে প্রশ্ন থেকেই যায়, শেষ পর্যন্ত কি পেরে উঠবেন এই কাউন্সিলর প্রার্থী আলী রেজা (রাজিব)? তবে এলাকাবাসি জানিয়েছেন আলী রেজা রাজিবকে নিয়ে বেশ কিছু তথ্য। এলাকাবাসী উন্নয়নে প্রতিদিনই কোনো না কোনো কর্মসূচি নিয়ে তিনি হাজির হন। প্রতিবারই ভিন্ন আঙ্গিকে ভিন্ন কৌশলে জনসেবা করে যাচ্ছেন এই এই মুক্তিযোদ্ধার সন্তান । কখনও অসহায় শিশুদের পাশে, কখনও প্রতিবন্ধীদের পাশে আবার কখনও নও মুসলিমদের পাশে এভাবে একের পর এক সামাজিক কর্মকান্ড করেই যাচ্ছেন বিগত কয়েক বছর যাবৎ । মানুষের সেবা করাই যেন তার নেশা পেশা হিসেবে পরিণত হয়েছে। তবে অপ্রিয় হলেও সত্য এই মূহুর্তে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ২ নং এ ওয়ার্ডে যোগ্য কাউন্সিলরের অভাববোধ করছেন এলাকাবাসি। তবে  কাউন্সিলর না হয়েও বিগত দিনগুলোতে ২ নং ওয়ার্ডে অন্য সকল কাউন্সিলর প্রার্থীর থেকে ব্যাতিক্রমী কর্মকাণ্ডে নিজেকে এগিয়ে রেখেছেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান  আলী রেজা রাজিব।

 

rcc-counsilor-new-candidate-ali-reza-razib.jpg

সার্বিক বিষয়ে তথ্য নিতে গিয়ে রাজশাহী মহানগরীর ২নং ওয়ার্ডের মোল্লাপাড়ার বাসিন্দা মাস্টার সাইফুল  বলেন – আধুনিক রাজশাহীর রুপকার, জাতীয় শহীদ নেতা ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কামরুজ্জামানের সুযোগ্য সন্তানের পোষ্টার এভাবে নামিয়ে রাখা মানে এটা অবমাননার শামিল। এই ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সার্বিক কর্মকাণ্ডেও হতাশ এলাকাবাসী। তাই মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আলী রেজা রাজিবকে শিক্ষিত সমাজ কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চায়।

 

 

অন্যদিকে রাজশাহী মহানগরীর  হড়গ্রাম কলোনী এলাকার রোকেয়া  নামের ৭০ বছর বয়স্কা বৃদ্ধা বলেন – কাউন্সিলর না হয়েও আলী রেজা (রাজিব) করোনা থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত যে ভাবে আমাদের মত গরীব মানুষকে দেখেছেন এতে আমরা খুশী। কিন্তু আমাদের কাউন্সিলর নজরুলের কাছে কোন কাজে গেলে এখন না তখন আজ না কাল বলে ঘুরাতে থাকে।

 

 

একই ওয়ার্ডের স্থায়ী বাসিন্দা রিক্সাচালক মোমিন বলেন – ভাই, আমরা দিন আনি দিন খাই কিন্তু কাউন্সিলেরর কাছে কোন কাজে গেলেই ধন্না দিতে হয় দিনের পর দিন। আবার বিচারের কাজ হলে টাকা ছাড়াও কাজ করতে চাননা কাউন্সিলর নজরুল। তাই এবার রাজিব ভাইকে ভোট দিতে চাই।

 

rcc-counsilor-candidate-ali-reza-razib-election.jpg
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সুযোগ্য কন্যা ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য, রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ডা: আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা সাথে নির্বাচনী প্রচারণায় আলী রেজা রাজিব

অন্যদিকে এলাকাবাসীর একটি অংশ জানায়, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের এই ২ নং ওয়ার্ডে সেবা, সুশাসন, সুশিক্ষার সমন্বয়ে সর্বস্তরের নাগরিকদের সঠিক মূল্যায়নে একটি উন্নত ওয়ার্ড গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাউন্সিলর প্রার্থী আলী রেজা (রাজিব)। সুবিধাবঞ্চিত ওয়ার্ডবাসীর উন্নয়নে নাগরিক সেবা তাঁদের দোরগোড়ায় পৌছিয়ে দিতে কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন তিনি। সমাজের বিভিন্ন শ্রেনীর মানুষের মাঝে কাজ করতে যেয়ে উপলব্ধি করেছেন সাধারণ মানুষের হয়রানিসহ নানা সমস্যার কথা।

 

রাজশাহী মহানগরীর ২নং ওয়ার্ডের বৃদ্ধিরপাটাল নগরপাড়া, মোল্লাপাড়া, হড়গ্রাম শেখপাড়া ,হড়গ্রাম কলোনী,হড়গ্রাম নতুন পাড়া,হড়গ্রাম পূর্বপাড়ার স্থানীয়রা জানান, রাজিব একজন সৎ ও যোগ্য ছেলে। রাজিব কাউন্সিলর হলে এই ওয়ার্ডবাসী অবহেলিত থাকবেনা এবং কেউ কোন সুবিধা থেকেও বঞ্চিত হবেনা।

 

নির্বাচন কেন্দ্রীক বিষয়ে উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আলী রেজা রাজিব জানান  – আমি কারো সমালোচনা করতে চাই না। জনগণ ওয়ার্ড উন্নয়নে যাকে যোগ্য মনে করবেন, তাকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন। তবে আমি নিজে সঠিক থেকে সঠিক প্রক্রিয়ায় সঠিক জায়গায় কাজ করতে গিয়ে অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছি আর তাই এই উপলব্ধি থেকে সাধারণ মানুষের সমস্যার কথা চিন্তা করে প্রার্থী হয়েছি।

 

 

ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষের নিকট গিয়ে শুনেছি তাদের সমস্যাগুলো। সমস্যা নিরসনে জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে জনগনের সেবক হিসেবে কাজ করতে চাই। কারন জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের রাজা বাদশা মনে করেন। আমি তাদের বলতে চাই, আপনারা রাজা কিংবা বাদশা নন, আপনারা জনগণের চাকর। আমি যদি নির্বাচিত হই তবে জনগণের চাকর হিসেবেই তাদের দেওয়া অর্পিত দ্বায়িত্ব আমি পালন করবো মাত্র। আমি ওয়ার্ডের টেকসই উন্নয়নে কাজ করবো। তবে আমি নির্বাচিত না হলেও সমাজের জন্য কাজ করে যাবো কেননা এটি আমার পারিবারিক ঐতিহ্য। 

 

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ২নং ওয়ার্ডবাসীদের লক্ষ্য করে  এই কাউন্সিলর প্রার্থী বলেন,আপনার ওয়ার্ডের আগামী ৫ বছরের ভবিষ্যৎ কার হাতে তুলে দিবেন সেটা আপনার সুচিন্তিত মতামতের উপর ছেড়ে দিলাম। অর্থের বিনিময়ে এমন কাউকে  মূল্যবান ভোট দেবেন না, যাতে আপনার পরবর্তী প্রজন্ম অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়।  

 

তবে সার্বিকভাবে তরুণ প্রজন্মের উদীয়মান নেতৃত্ব প্রদানকারী প্রার্থী ক্রীড়াপ্রেমী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আলী রেজা (রাজিব)  ব্যাপক জনসমর্থন পাচ্ছেন বলে দাবি তার সমর্থকদের।  প্রতিদিনই ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করে ওয়ার্ডবাসীর কাছে ভোট ও দোয়া চাচ্ছেন তিনি। তার এলাকার অধিকাংশ ভোটারের দাবি আদর্শবিহীন কাউন্সিলেরের থেকে নতুন ও তরুন নেতৃত্ব এ ওয়ার্ডকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন বলে ধারনা রাসিকের ২ নং ওয়ার্ডবাসীর।

……………………………………………………………


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

Discover more from UttorbongoProtidin.Com 24/7 Bengali and English National Newsportal from Bangladesh.

Subscribe to get the latest posts sent to your email.

Leave a Comment

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *