godagari_nuru_majhi_news_live
রাজশাহী গোদাগাড়ীর নুরু মাঝিকে যেভাবে মিথ্যা মামলায় ফাঁসালো মাদক ব্যবসায়ী বাবু

রাজশাহী গোদাগাড়ীর নুরু মাঝিকে যেভাবে মিথ্যা মামলায় ফাঁসালো মাদক ব্যবসায়ী বাবু

Rajshahi_Pet_Care
উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক, উত্তরবঙ্গ প্রতিদিন :: রাজশাহী গোদাগাড়ী থানাধীন পিরিজপুর এলাকার নুরুল ইসলাম নুরু মাঝি ও মাছচাষীকে এবং তার ভাই নাইম হোসেনকে মাদক ব্যবসায়ীর পক্ষ নিয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসিয়ে জেল খাটানোর অভিযোগ উঠেছে রাজশাহী প্রেমতলী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর উসমান গণির বিরুদ্ধে। এমনটিই অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী নুরু মাঝির আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিরা।

 

 

মামলার এজাহারে বর্নিত ঘটনার স্থান কাল পাত্র অনুযায়ী অভিযোগ আনা হয়েছে যে, গত মাসের ২৬/০১/২০২৪ তারিখে সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে গোদাগাড়ী থানাধীন বিদিরপুর ঘাটে নুরু মাঝি ১৩ মামলার আসামী ও মাদক ব্যবসায়ী রাশিকুল ইসলাম বাবুর উপরে হামলা চালিয়ে তার কাছে চাঁদা দাবি করে ও টাকা ছিনিয়ে নেয়। যার ফলে গোদাগাড়ীর  থানায় অভিযোগের পর মামলা দায়ের হয় যার মামলা নং ২৭। বর্তমানে উক্ত মামলায় নুরু মাঝি ও তার ভাই জেল হাজতে রয়েছে।

 

এখন প্রশ্ন আসতেই পারে উক্ত মামলার বাদী সত্যি কি একজন মাদক ব্যবসায়ী এবং তার মামলা কি আদৌ কোন সত্য ঘটনা ? তবে অনুসন্ধানে জানা গেছে, এই মামলার বাদী রাশিকুল ইসলাম বাবুর বিরুদ্ধেই রয়েছে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, হত্যাসহ ডজন খানেক মাদক মামলা। যার প্রমান হিসেবে নিম্নে উক্ত মামলার বাদী রাশিকুল ইসলাম বাবুর (পিসিপিআর) অর্থাৎ পুলিশে থাকা বিভিন্ন মামলার তথ্য দেয়া হলো –

 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০১৪ সালের  ১২ই আগস্টের এফআইআর নং ১২ জিআর নং ২৬০/১৪   (চাঁদাবাজি   মামলা) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০০৯ সালের ২১শে মে এফআইআর নং ১৬ (চাঁদাবাজি মামলা )

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০১০ সালের ১০ই জুন এফআইআর নং ১৫ (১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে মাদক মামলা )

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০১৪ সালের ২৮ জুলাই এর এফআইআর নং ৫  জিআর নং ২২২/ ১৪ ( হত্যা মামলা ) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২০ সালের ২রা জুলাই এফআইআর নং ১/২৫৪ ( হত্যা ও মারামারি মামলা ) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২০ সালের ২৯ নভেম্বর এফআইআর নং ৪৯/৪৬৯ ( হত্যা ও মারামারি মামলা ) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২১ সালের ১৮ই জানুয়ারি সিআর নং – নারী ও শিশু/৫/২১ (নারী শিশু নির্যাতন মামলা )

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২১ সালের ৮ ই এপ্রিলের এফআইআর নং ১৫/১১৪, জিআর নং   ১১৪/ ২০২১ (মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ মামলা) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২৩ সালের ২১মের এফআইআর নং ২৬৭ (মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ মামলা) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২১ সালের ১৮ই জানুয়ারি সিআর নং নারী ও শিশু/৫/২১ (নারী শিশু নির্যাতন মামলা )

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০২১ সালের ৬ জুনের এফআইআর নং ১৫/১৯৯, জিআর নং ১৯৯ (হত্যা  মারামারি মামলা) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০১৩ সালের ১৩ই অক্টোবর এফআইআর নং ১৫ ( অস্ত্রও হত্যা মামলা) 

রাজশাহী গোদাগাড়ী  থানার ২০০৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর এফআইআর নং ২৫ (মারামারি মামলা)

 

এদিকে উক্ত ঘটনার বিষয়ে রাজশাহী গোদাগাড়ী থানাধীন বিদিরপুর এলাকায় রাজশাহী মডেল প্রেসক্লাবের কয়েকজন সাংবাদিক অনুসন্ধানে গেলে স্থানীয় ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম জানান – আমরা বিদিরপুর বাজারের স্থানীয় ব্যবসায়ী।  উক্ত বাজারে যে কোন ঘটনা ঘটলে তা আমাদের অজানা থাকেনা কিন্ত বিগত ২৬/০১/২০২৪ ইং তারিখে এই স্থানে ছিনতাই কিংবা মারামারির কোন ঘটনাই ঘটেনি। নুরু মাঝি একজন মাছচাষী।এছাড়াও পুলিশ,ডিবি,বিজিবি,র‍্যাব  আসলে তার নৌকাতেই নদী পারাপার করে।

 

অন্যদিকে ভাপা পিঠা  বিক্রেতা ষাটোর্ধ রোকেয়া বিবি বলেন – নুরু মাঝির সাথে কখনই কারোও সাথে কোন দিন মারামারিই হয়নি। ঐ নৌকা চালায়। নুরু মাঝি সহজ সরল ছেলে। যে কোন পুলিশ,ডিবি,বিজিবি,র‍্যাব  আসলে তার নৌকাতেই নদী পারাপার করে। আর পুলিশ ডিবিকে সাহায্য করার জন্যেই এই মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে তাকে।

 

রাজশাহী বিদিরপুর এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা ও অবসরপ্রাপ্ত সাবেক কৃষি কর্মকর্তা সোহরাব আলী জানান – রাশিকুল ইসলাম বাবু গোদাগাড়ী থানা এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে অনেক মামলা তাই পুলিশের সাথেও রয়েছে সক্ষতা । তবে  কিছুদিন আগে রাজশাহী জেলা ডিবি পুলিশ নুরু মাঝির নৌকা নিয়ে চরে গিয়ে  রাশিকুল ইসলাম বাবুর ফেন্সিডিলের চালান উদ্ধার করে বলে শুনেছি আর সেই রাগ ক্ষোভ থেকেই এই মামলা। তবে এটা নিশ্চিত যে, নুরু মাঝিকে পুরোপুরি সুপরিকল্পিত ভাবে ফাঁসানো হয়েছে। তবে বাদীর এবং বিবাদীর মোবাইল নাম্বার পর্যালোচনা করলেই আসল সত্য বের হয়ে আসবে।

 

তবে এই ঘটনা সংক্রান্ত আরও যে সকল তথ্য উপাত্ত উঠে এসেছে তা রীতিমতো অবাক হওয়ার মত বিষয়। কেননা ঘটনার দিন অর্থাৎ ২৬/০১/২০২৪ ইং তারিখে  দুপুর ৩ টা থেকে নুরু মাঝি রাজশাহী জেলা ডিবির একটি টিমকে সহযোগিতা করার জন্য নদীতেই অবস্থান করছিল বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা।

 

 

অন্যদিকে স্থানীয়দের সূত্র ধরে রাজশাহী জেলা ডিবির সাথে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঐ দিন ঐ নৌকায় থাকা জেলা গোয়েন্দা পুলিশর কর্মকর্তারা জানান – নুরু মাঝির নৌকা নিয়ে আমরা  ২৬/০১/২০২৪ ইং তারিখে  দুপুর ৩ টা থেকে পরের দিন ভোর ৫ টা পর্যন্ত চর এলাকায় অভিযানে ছিলাম রাশিকুল ইসলাম বাবুর ফেন্সিডিলের চালান ধরার জন্য তাহলে সে কিভাবে এই ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে তা আমাদেরও বোধগম্য নয়।

 

 

তবে রাজশাহী গোদাগাড়ীর নুরু মাঝির মামলার বিষয়ে বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের রাজশাহীর বিভাগীয় সমন্বয়কারী ও আইনজীবী হারুন সওদাগর বলেন – যে মাছ চাষী র‍্যাব,পুলিশ,ডিবি,বিজিবিকে তার নিজের  নৌকা দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন তাকেই বাবুর মত একজন মাদক ব্যবসায়ীর মামলায় উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে মামলায় আটকানোর বিষয়টি পরিস্কার। সাধারণ মানুষ যাদের উপর আত্মবিশ্বাস নিয়ে রাতের বেলা ঘুমায় সে রক্ষকই যদি ভক্ষক হয় তাহলে সাধারণ মানুষের আশ্রয়স্থল কোথায়। সরকার যেখানে মাদকের বিষয়ে জিরো টলারেন্স গ্রহণ করেছে সেখানে মাদক ব্যবসায়ীকে সহযোগীতা করছে একটি মহল। তবে নুরু মাঝির বিষয়ে মামলার বিষয়ে বাংলাদেশ মানবাধিকার ফাউন্ডেশন ঘটনাস্থলসহ সবটুকুই অনুসন্ধান করবে এবং প্রয়োজনে মানববন্ধনসহ স্বরাস্ট্র মন্ত্রনালয় বরাবর তদন্ত দাবি করবে।

 

 

পরিশেষে উল্লেখ্য যে, উক্ত মামলা নিয়ে জনমনে যে সংশয় তৈরি হয়েছে তার সঠিক তদন্ত হওয়া বলে উচিত বলে মনে করছে রাজশাহীর অভিজ্ঞ মহল। নতুবা মাদক কারবারিরা আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাতে বিন্দু সময় নেবেনা। 


উত্তরবঙ্গ প্রতিদিনের সংবাদটি শেয়ার করুন

Discover more from UttorbongoProtidin.Com 24/7 Bengali and English National Newsportal from Bangladesh.

Subscribe to get the latest posts to your email.

Leave a Comment

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *